সংবাদ শিরোনাম
অবশেষে দলীয় মনোনয়ন বাতিল হলো নাসিরনগরে সাম্প্রদায়িক হামলা মামলার চার্জশীটভুক্ত দুই আসামীর আগামী শনিবার জেলা আ’লীগের উপদেষ্টামন্ডলী ও সম্পাদকমন্ডলীর যৌথসভা রাস্তায় শ্রমিক হয়রানী ও নির্যাতন বন্ধসহ রিক্সা ও ইজিবাইকের লাইসেন্স নবায়ন দাবী বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের  সরাইলে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক স্থানে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু   নাসিরনগরে সাম্প্রদায়িক হামলা মামলার চার্জশীটভুক্ত দুই আসামী পেলেন চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের মনোনয়ন।। তৃণমূলে অসন্তোষ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তরুণীকে অপহরণের ঘটনার মূল হোতা ঢাকায় গ্রেফতার  কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে ; উপসচিব নাজমা বেগম  বিজয়নগরে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ।। মামলা তুলে নিতে আসামীদের হুমকি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাফিক পুলিশকে পিটিয়েছে এক তরুণ।। তবে কেন এ হামলা জানা নেই কারো
খুলতে শুরু করেছে নাসিরনগরে রহমত আলী হত্যা মামলার জট

খুলতে শুরু করেছে নাসিরনগরে রহমত আলী হত্যা মামলার জট

মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর প্রতিনিধি
অবশেষে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নের বুড়িশ্বর গ্রামের মৃত ফালান ফকিরের ছেলে রহমত আলী হত্যা মামলার জট খুলতে শুরু করেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান এর দিক নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক শোভন কুমার সাহা খুনের মুটিভ উদ্ধার করতে কাজ শুরু করেছেন।
গত বুধবার সকালে মামলার অন্যতম আসামী আলমগীর চৌধুরীর ছোট ভাই মোঃ আমরুল কায়েস চৌধুরীকে সিলেট থেকে গ্রেপ্তার করে নিযে আসে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক শোভন কুমার সাহা।
জানা গেছে, আমরুল কায়েস চৌধুরীসহ এ পর্যন্ত উক্ত মামলার তিন আসামীকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠিয়েছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। জেলহাজতে থাকা অন্য আসামীরা হলেন- ঐ গ্রামের মৃত শাহজাহান চৌধুরীর ছেলে রকিব চৌধুরী ও রেনু মিযার ছেলে রোমান মিয়া।
জানা যায়, গত ২০ মে ২০২১ ইং তারিখ দিবাগত রাত অনুমান ১১টায় উপজেলার বুড়িশ্বর চানপাড়া গ্রামের মৃত নুরুর ইসলাম চৌধুরীর ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ আলমগীর চৌধুরী ও তার লোকজন মিলে প্যাচাবাড়ির ফালান ফকিরের ছেলে মোঃ রহমত আলীকে নির্মমভাবে খুন করেন। পরদিন খুনের মামলা থেকে নিজে বাঁচতে চতুর আলমগীর নিজে ৮ নং সাক্ষী সেজে ২২ জনকে আসামী করে নাসিরনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২৩, জি,আর মামলা নং- ৯৭। পরবর্তীতে আলমগীর চৌধুরী খুঁনের সাথে জড়িত বলে বাদীর সন্দেহ হলে থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করেন। কিন্তু নাসিরনগর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) জুলুস আহমেদ খান পাঠান আলমগীরকে গ্রেপ্তার করতে রাজি হয়নি। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে বাদীর লোকজন আলমগীরকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেন। এসময় পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তিতে আলমগীর চৌধুরী আহত হয়। পরে পুলিশ প্রহরায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পালিয়ে যান আলমগীর। আলমগীর বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক শোভন কুমার সাহা জানান, আলমগীরকে গ্রেফতার করতে পুলিশ সবসময় তৎপর রয়েছে। খুব শীঘ্রই এই হত্যা মামলার রহস্য উন্মেচন করা হবে।
ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com