সংবাদ শিরোনাম
সরাইলে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উদযাপন বিজয়নগরে অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ।। ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বিজয়নগরে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বিজয়নগরে আম্বিয়া মিজান বালিকা বিদ্যালয়ে শোক দিবস পালন বিজয়নগরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রী পরিষদের ৯৮% মন্ত্রীরা খন্দকার মোশতাক এর মন্ত্রী পরিষদে যোগ দিয়েছিলেন; উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বিজয়নগরে আব্দুল্লাহ নামে এক মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ ইতিহাস তার নিজের প্রয়োজনেই বঙ্গবন্ধুকে সৃষ্টি করেছে এবং নিজের প্রয়োজনেই তাঁকে অমর করে রাখবে; কথাসাহিত্যিক রফিকুর রশীদ সাংবাদিক আব্দুল বাছিতের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে কমলগঞ্জে বিক্ষোভ সমাবেশ কমলগঞ্জে সন্ত্রাসীদের হামলায় সাংবাদিক আব্দুল বাছিত গুরুতর আহত
কক্সবাজার জেলা পুলিশের ক্রীড়াতে ফুটে উঠলো মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা; মুজিব শতবর্ষসহ নানান সব আয়োজন

কক্সবাজার জেলা পুলিশের ক্রীড়াতে ফুটে উঠলো মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা; মুজিব শতবর্ষসহ নানান সব আয়োজন

নুরুল বশর মানিক//কক্সবাজার প্রতিনিধি   

৬ ফেব্রুয়ারী, বৃহস্পতিবার, বিকেল বেলা। কলাতলী-বাসটার্মিনাল বাইপাস সড়কের দক্ষিণ পার্শ্বে নতুন কারাগারের বিপরীতে কক্সবাজার পুলিশ লাইন্সের ঘাস কার্পেটে ভরা বিশাল মাঠ। সেখানেই ছিলো কক্সবাজার জেলা পুলিশের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান।
আয়োজনটা বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান নাম হলেও সেখানে ফুটে উঠেছে গত প্রায় একশ’ বছরে বাংলাদেশ। চিত্রায়িত করা হয়েছে, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ, ১৯৬৯ সালের গণ অভ্যূত্থান, ঐতিহাসিক বায়ান্নের ভাষা আন্দোলন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৬ দফা, স্বাধিকার আন্দোলন, মুজিব জন্ম শতবর্ষের কর্মসূচী, দেশপ্রেমের অপরূপ দৃশ্যাবলী সহ আরো অনেক রকমারী আয়োজন। যেন প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশটাই কক্সবাজার পুলিশ লাইন্স মাঠ। মাঠের সবদিকেই এদেশের মানুষের বীরত্বগাঁথা সব সাফল্যের নানন্দিকতার ছাপ, আর দেশপ্রেমে উদ্বেলিত হওয়ার মতো সব বাহারী অসাধারণ আয়োজন। ক্রীড়া, বিনোদন আর দেশপ্রেমে ভরা ছিলো মনোমুগ্ধকর এই অনন্য অনুষ্ঠানমালা। কক্সবাজার জেলা পুলিশের সদস্যদের পাশাপাশি অনুষ্ঠানটি ছিলো কক্সবাজারের শীর্ষ রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি, পেশাজীবী, সাংবাদিক, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রধান, আলোকিত মানুষ, বুদ্ধিজীবী জেলার ভিআইপিদের এক অঘোষিত মিলনমেলা। এ মিলনমেলায় সবার মুখে মুখে ছিলো-এ বিশাল ও নান্দনিক আয়োজনে পেশাদার পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের দেশপ্রেমের প্রতি আন্তরিকতার সুস্পষ্ট বহিঃপ্রকাশ। অনুষ্ঠান নিয়ে উপস্থিত সুধীজনের মন্তব্য ছিলো- এভাবে সর্বক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের রক্তঝরা সাফল্যের ইতিহাস তুলে ধরা হলে, এদেশের মানুষের মনে দেশপ্রেমের বীজ ক্রমান্বয়ে আরো গভীর থেকে গভীরে প্রোথিত হবে। নব প্রজন্মের জানতে সহজ হবে তাদের পূর্বসূরীদের সাফল্যগাঁথা ও সমৃদ্ধ সব ইতিহাস। অপরাধ দমনের পাশাপাশি পুলিশ যে জনবান্ধব ও ক্রীড়ামুখী হয়ে উঠছে, মানবিক ও বিনোদনপ্রেমি হচ্ছে-তার একটা উজ্জ্বল প্রমাণ হলো-বৃহস্পতিবার ৬ ফেব্রুয়ারীর এই বিশাল, ব্যতিক্রমী ও হৃদয়গ্রাহী সব আয়োজন।আর এই বর্ণাঢ্য আয়োজন উদ্বোধনের প্রাণ পূরুষ ছিলেন এদেশের সফল আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার)। যিনি পুরো দেশের পুলিশ বাহিনীর অসংখ্য বিষয়ে শত সহস্র ব্যস্ততার মাঝেও কক্সবাজারের জেলা পুলিশকে তাঁর মূল্যবান সময় দিয়ে কক্সবাজার জেলা পুলিশের ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করেছেেন। ঋনী করেছেন, দরিয়াপাড়ের মানুষকে।এই ব্যতিক্রমী আয়োজন উদ্বোধন করতে গিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক চৌকস, মেধাবী ও দূরদর্শী পুলিশ কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার) তাঁর প্রদত্ত মূল্যবান দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্যে বলেন, ‘আসলে পুলিশকে সত্যিকার অর্থেই জনতারই হতে হবে, এর কোন বিকল্প নাই। জনগণ যেন আস্থা পায়, বিশ্বাস পায় এবং পুলিশের কাছে দাঁড়াতে পারে।’ তাই বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশের সব কর্মকান্ড আমজনতাকে ঘিরেই নেয়া হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশের প্রতি আগে মানুষের যে একটা অনীহা ছিল, ভীতি ছিলো, নেতিবাচক মনোভাব ছিলো, সেটা কিন্তু এখন আর খুব একটা নেই। বরং পুলিশের প্রতি মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস বৃদ্ধি পেয়েছে। আসলে পুলিশের এটাই সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। এটি পুলিশের জন্য বিশেষ বছর। ‘মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে নেয়া হয়েছে বিভিন্ন জনবান্ধব কর্মসূচী। তারমধ্যে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ চালু হওয়ায় মানুষের মাঝে একটা আত্মবিশ্বাস এসেছে। কোথাও কেউ কোনো অন্যায়, অপরাধ দেখলেই সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে ফোন করছে এবং পুলিশ সেখানে পৌঁছে যাচ্ছে, ব্যবস্থা নিচ্ছে।’ ৯৯৯ চালু হওয়ার পর ২ কোটিরও বেশী মানুষ সেবা চেয়েছে। তারমধ্যে ৮/৯ লক্ষ মানুষকে যথার্থ পুলিশী সেবা দেয়া হয়েছে। এতে বড় বড় অপরাধ সংগঠিত হওয়ার আগে প্রপার পদক্ষেপ নিতে পেরেছে পুলিশ। পুলিশকে জনতার আরও কাছে নেয়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান পুলিশের মহাপরিদর্শক, বিস্ময়কর প্রতিভাসম্পন্ন ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার)। আয়োজনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম বার (পিপিএম) বলেছেন, সারা বছর দেশ ও মানুষের সেবায় ব্যস্ত থাকে পুলিশ। শুধুমাত্র একটি দিন তাদের ক্রীড়া চর্চার জন্য রাখা হয়। ক্রীড়া চর্চায় বিকশিত হয় মেধা, প্রতিভা ও মননের, সমন্বয় হয় দেহ ও বিনোদনের। এতে ভাতৃত্বের বন্ধন আরো সুদৃঢ় হওয়ার পাশাপাশি দক্ষতার পরিচয় ঘটে।তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতি যত শক্তিশালী ও মজবুত হবে, তত বেশি আমরা আমাদের সব প্রতিষ্ঠানকে আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ করতে পারবো ইনশাআল্লাহ। আজ বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল এবং উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে।

ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।    

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com