সংবাদ শিরোনাম
ডিপিএস’র মেয়াদপূর্তির এক গ্রাহককে লভ্যাংশসহ প্রদান করলেন ন্যাশনাল এমসিএস লিমিটেড মৌলভীবাজারে জেলা পুলিশের মাস্ক সপ্তাহের উদ্বোধন শ্রীমঙ্গলে করোনায় কিশোরীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় উপকরণ বিতরন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বিজয়নগরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত- ৩।। আহত- ৫ শাহজাহান মিয়া (মিঞা ভাই) এর মৃত্যুতে জেলা আ’লীগ সহ বিভিন্ন মহলের শোক শ্রীমঙ্গলে দোকানের দেয়াল ভেঙ্গে চুরি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হত্যা মামলায় ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর মিয়া ভাই চিপস দেওয়ার কথা বলে এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ নাসিরনগরে দলিল লেখক সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ
বিজয়নগরে এক যুবককে বেধম পিটিয়েছে বিজিবি (ভিডিও-সহ)

বিজয়নগরে এক যুবককে বেধম পিটিয়েছে বিজিবি (ভিডিও-সহ)

বিজয়নগর সংবাদদাতা//সময়নিউজবিডি 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর (৩৫) নামে এক যুবককে বেধম পিটিয়েছে বর্ডার গার্ড (বিজিবি) বিষ্ণুপুর ক্যাম্পের সদস্যরা। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন ওই যুবক। 
বুধবার (১৫ এপ্রিল) বেলা পৌনে ২টায় বিজয়নগর উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের পশ্চিম কালাছড়া নামক এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। 

বিজিবি বিষ্ণুপুর ক্যাম্প সদস্যদের বেধম পিটুনিতে গুরুতর রক্তাক্ত আহত জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর নামে এক যুবক।


জানা যায়, বুধবার সকালে উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের সেজামুড়া গ্রামের ইদ্রিস মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে আসেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের মুন্সেফপাড়া মহল্লার সাইদুল খানের ছেলে জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর। সাগর জাহাঙ্গীর আলমের আত্মীয় হিসেবে জাহাঙ্গীর এর অনুরোধে ঘরের ছালের মারুইলের জন্য মাইট্যা তেল নিয়ে জেলা শহর থেকে আসেন। পরে সেখান থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফেরার পথে জাহাঙ্গীর আলম সেজামুড়া থেকে বিষ্ণুপুর রানওয়ে (কাংকইরা) বাজার পর্যন্ত সাগরকে এগিয়ে দিতে আসার পথে বেলা পৌনে ২টায় পশ্চিম কালাছড়া নামক এলাকায় আসলে বিজিবি বিষ্ণুপুর ক্যাম্পের টহল সদস্যরা সাগরের মোটরসাইকেল থামাতে সিগনাল দেন। এসময় সাগরের মোটরসাইকেল ড্রাইভিংয়ে থাকা তার খালাতো ভাই মোটরসাইকেলটি থামায়। পরে বিজিবি সদস্যরা তাদের শরীর তল্লাশি করে কিছু না পেয়ে গাড়িতে তিনজন থাকায় একজনকে গাড়ি নিয়ে চলে যেতে বলে ও বাকি জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর ও তার আত্মীয় জাহাঙ্গীর আলম কে গাড়ি থেকে নামিয়ে কেন এখানে আসছে জিজ্ঞাসাবাদ করলে জাহাঙ্গীর আলম জানান, স্যার আমার বাড়িতে আসছিল আমার ঘরের কাঠে (মারুইলের) দেওয়ার জন্য মাইট্যা তেল নিয়ে। আমি স্যার তাকে এগিয়ে দিতে আসছিলাম। তাদেরকে রানওয়ে বাজারে দিয়ে আমি আবার আমার বাড়িতে (সেজামুড়া) চলে যাবো। আমাদের ভুল হয়ে থাকলে আজকের মতো মাফ করে দেন। এসময় জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর তার পূর্ব পরিচিতি বিষ্ণুপুর বিজিবি ক্যাম্পে কর্মরত একজনকে কল দেন। কলটি তখন রিসিভ না হলেও পরে ঐ বিজিবি সদস্য কল বেক করলে সাগর উপস্থিত টহলরত বিজিবি সদস্যদের অনুরোধ করেন তাদের কলিগের সাথে কথা বলতে। একথা বলতেই জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগরকে বিজিবির তিন সদস্য মাথার চুলে ধরেন ও আরো দুইজন তাকে তাদের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে বেধম পিটাতে থাকে। এমনকি সাগরকে মাটিতে ফেলে লাথি মারতে শুরু করেন। বিজিবি সদস্যরা তার পিটে পায়ে সহ সারা শরীরে পিটিয়ে মারত্মক রক্তাক্ত জখম করেন। বিজিবি সদস্যদের বেধম পিটুনিতে জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর গুরুতর আহত হলে তার খালু ও খালাতো ভাই এ খবর শুনে বিষ্ণুপুরের মহেশপুর এলাকা থেকে ঘটনাস্থলে গিয়ে সাগরকে অজ্ঞান অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। 
এ ব্যাপারে জুবায়ের হোসেন রাজিব খান ওরফে সাগর এর আত্মীয় উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের সেজামুড়া গ্রামের বাসিন্দা এ প্রতিবেদককে জানান, আমার ঘরের কাঠে দেওয়ার জন্য জেলা শহর থেকে মাইট্যা তেল নিয়ে আসেন সাগর। পরে দুপুরে তাকে আমি রানওয়ে (কাংকইরা) বাজারে এগিয়ে দিতে আসার পথে পশ্চিম কালাছড়া এলাকায় আসলে আমাদের সাথে থাকা মোটরসাইকেল থামিয়ে বিষ্ণুপুর বিজিবি ক্যাম্পের টহল সদস্যরা সাগরকে কুত্তার বাচ্চার মতো লাঠি দিয়ে বেধম পিটিয়েছে। আমি কাকুতি মিনতি করে বলেছি স্যার তাকে মারবেননা। সে আমার বাড়িতে আসছে, ভুল হয়ে থাকলে আপনাদের কাছে মাফ চাই আর এদিকে আসবো না। কিন্তু তারা একথা না শুনে উল্টো আমাকেও লাঠি দিয়ে পিটাইতে থাকে। পরে আমি কোন রকম দৌড়ে নিজেকে রক্ষা করি। 

কান্নাভেজা কন্ঠে জাহাঙ্গীর আলম এ প্রতিবেদককে আরো বলেন, মানুষ চোর ডাকাতকেও এভাবে পিটাই না যেভাবে আমার বাড়ির মেহমানকে পিটিয়েছে। আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে শুধু এটুকুই জানতে চাই কেন তাকেসহ আমাকে পিটিয়েছে। আমাদের অপরাধ থাকলে বিজিবি সদস্যরা আইনানুযায়ী আমাদের শাস্তি দিতো, জেল জরিমানা করতো। অহেতুক কারনে বিজিবি সদস্যরা আমাদেরকে পিটিয়েছে। তাদে লাঠির আঘাত ও পায়ের বুট দিয়ে লাথি মারা দেখে মনে হয়েছে তারা সাগরকে মেরে ফেলবে। আল্লাহর সহায় আছেন বিধায় সে এখনো বেঁচে আছে। আমি শুধু একটা কথাই বলবো, যদি গরিবের জন্য দেশে আইনের শাসন থাকে, তাহলে ঘটনাটি তদন্ত করে (আমাদের কি অপরাধ ছিলো) বিজিবি সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের নিকট দাবী জানাচ্ছি।                

এ ব্যাপারে বিজিবি বিষ্ণুপুর ক্যাম্পের কমান্ডার মোঃ শহিদ জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। টহল শেষে বিজিবি সদস্যরা ক্যাম্পে আসলে জানতে পারবো।                            
ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।    

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com