সংবাদ শিরোনাম
সরাইলে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠান আপনাদের ঘামের দাম আমি রক্ত দিয়ে হলেও পরিশোধ করবো; সিঙ্গারবিলের জনসভায় জাবেদ পত্তন ইউনিয়নের সম্মান রক্ষায় জাবেদকে ভোট দেবে বলে মাশাউড়াবাসীর ঐক্যবদ্ধ অঙ্গীকার এবার রবীন্দ্রনাথের ‘হৈমন্তী’ হয়ে আসছেন ঐশিকা ঐশি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ফের ব্রাহ্মণবাড়িয়া তিতাস গ্যাস ফিল্ডের ১৪ নম্বর কূপ থেকে গ্যাস উত্তোলন শুরু উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: আখাউড়ায় মনির ও কসবায় ছাইদুর রহমান বিজয়ী বিজয়নগরে বজ্রপাতে এক যুবকের মৃত্যু সরাইলে অসহায় দুঃস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ আখাউড়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী মুরাদের সভা থেকে বিরিয়ানি জব্দ বিজয়নগরে বিপুল পরিমাণ গাঁজা উদ্ধার

শরিফপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ভিজিডি কার্ডধারীদের সঞ্চয়ের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

শরিফপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ভিজিডি কার্ডধারীদের সঞ্চয়ের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার//সময়নিউজবিডি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের শরিফপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ভিজিডি কার্ডধারীদের সঞ্চয়ের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠোছে। টাকা ফেরত পেতে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কছে লিখিতভাবে অভিযোগ দিয়েছেন হতদরিদ্র ভুক্তভোগীরা।
লিখিত অভিযোগপত্রে উলে­খ করেন, ২০১৭-২০১৮ বছরে শরীফপুর ইউনিয়নের বিশেষ চাহিদাগ্রস্থ ব্যক্তিদের কাছ থেকে চেয়ারম্যান কতর্ৃক ভিজিডি কার্ডের মাধ্যমে প্রতিমাসে ২শত টাকা জমা দেন। জমার দেওয়ার টাকার বিপরীতে টানা ২ বছর টাউল গ্রহণ করেন ভুক্তভোগীরা। ২ বছরে ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট জনপ্রতি ৪ হাজার ৮শত টাকা জমা হয়। নিয়ম অনুযাযী ভিডিজি চক্র শেষ হবার ১৫ দিন পর ভোক্তভোগীদের টাকা ফেরত দেওয়ার কথা। কিন্তু বিগত ২ বছর যাবত ভোক্তভোগীরা চেয়ারম্যানের কাছে ধরণা দিয়েও এখনো পর্যন্ত জমা দেয়ার টাকা পাননি। বরং খোজ নিয়ে জানতে পারেন তাদের জমাকৃত টাকা ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। পরে ভুক্তভোগীরা জমাকৃত টাকা ফেরত চাইতে গেলে তিনি বলেন, চাল পাইছত আবার টাকা কিসের। যা পাইছ তা নিয়েই সন্তুষ্ট থাক। না হলে পরবতর্ীতে আর কোন সুবিধা পাইবানা। চেয়ারম্যানের ব্যবহারে বিরক্ত হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন।অভিযোগকারীরা হলেন কুলসুম বেগম, শায়েরা, আনুয়ারা, জোসনা, আনোয়ারা, শরীফা।
শরিফপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধুরীর  জানান, আমি কারো টাকা মেরে খাইনি। এই টাকা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কাছে আছে। তবে আমার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ মিথ্যা।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, আমরা এই বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।
ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com