সংবাদ শিরোনাম
মায়ের কোলে ফিরলেন ৭০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া শিশু কুদ্দুস মুন্সি।। আপ্লূত মা-ছেলে ও স্বজনরা নাসিরনগরে এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ করলেন ঐক্যবদ্ধ আলোকিত বাংলাদেশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন সংস্কার ও সকল ট্রেনের যাত্রা বিরতির দাবিতে নাগরিক ফোরামের ১৫ দিনের আল্টিমেটাম আগামীকাল হেফাজতের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত রেল স্টেশন পুনঃসংস্কার করে ট্রেনের যাত্রা বিরতির দাবীতে মানববন্ধন  আগামী ৪ অক্টোবর জেলা শ্রমিকলীগের বার্ষিক সাধারণ সভা ষড়যন্ত্রে একবার জাতিরপিতাকে হারিয়েছি, আর ষড়যন্ত্র করতে দেব না ; আইনমন্ত্রী আনিসুল হক  সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচিত সরকারের অধীনেই নির্বাচন হবে ; ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদক মামলায় তিন ভাইকে গ্রেপ্তার  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিলসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার  ১০ কেজি করে চাল পেলো কমলগঞ্জে ২ হাজার পরিবার
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সমর্থকদের হামলায় বিএনপির আলোচনা সভা পন্ড

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সমর্থকদের হামলায় বিএনপির আলোচনা সভা পন্ড

স্টাফ রিপোর্টার //সময়নিউজবিডি  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা সেচ্ছাসেবক দলের সমর্থকদের হামলায় জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসের জেলা বিএনপির আলোচনা সভা পন্ড হয়ে গেছে। এ হামলায় জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোল্লা সালাউদ্দিন সহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়।

বৃহস্পতিবার (০৭ নভেম্বর) বিকেলে শহরের ফুলবাড়িয়া কনভেনশন সেন্টারে সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম বাশারের নাম পরে ডাকা নিয়ে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভার আয়োজন করে জেলা বিএনপি। সভার শুরু হওয়ার পর সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম আবুল বাশারের নাম পরে ডাকা নিয়ে তার সমর্থকেরা ক্ষুব্ধ হয়ে উপস্থিত কয়েকজনের সাথে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন। এসময় ক্ষুব্ধ হয়ে বাশার অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন। এরকিছুক্ষণ পরে সভা চলাকালে তার পক্ষের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সভাস্থলে উপস্থিত হয়ে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। এসময় সংঘর্ষে জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোল্লা সালাউদ্দিনসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়। এ ঘটনায় আতংক ছড়িয়ে পড়লে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ সভাস্থল ত্যাগ করেন।

এবিষয়ে জেলা সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম আবুল বাশারের বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

তবে জেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা (কচি) জানান, আমাদের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনাটি ছিল পূর্ব পরিকল্পিত। পুলিশ বাইরে থাকার পরেও কিভাবে অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা করতে পারে? তিনি আরও বলেন, যদি এই ঘটনায় দলীয় কেউ জড়িত থাকে তাহলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) সুমন দেবনাথ বলেন, আলোচনা সভার কনভেনশন সেন্টারে বাইরে আমাদের দায়িত্ব পালন করছি। যেন বাইরে কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করতে পারে। কনভেনশন সেন্টারের ভেতরে কি হয়েছে তা তাদের দলীয় বিষয়। 

ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর। 

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com