সংবাদ শিরোনাম
মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নাই; ইউএনও ইরফান উদ্দিন আহামেদ  বিজয়নগরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে বাল্যবিবাহ বন্ধ।। ৫০ হাজার টাকা জরিমানা   বিজয়নগরে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ধান সংগ্রহ শুরু আশুগঞ্জে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি আটক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিশ্ব মা দিবস উদযাপন  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় র‍্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ ৩ মাদক কারবারি আটক  আগামীকাল দিনব্যাপী জেলা ও উপজেলা আ’লীগ নেতৃবৃন্দের জরুরী মতবিনিময় সভা বাঁচতে চান ক্যানসার আক্রান্ত ইউপি সদস্যা শেলিনা কর্মমুখী শিক্ষার মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাবে; বাউবি উপাচার্য ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার
ইউপি নির্বাচন-বিজয়নগরে বিদ্রোহী প্রার্থীদের পদচারণায় নির্বাচনী মাঠ সরগরম  

ইউপি নির্বাচন-বিজয়নগরে বিদ্রোহী প্রার্থীদের পদচারণায় নির্বাচনী মাঠ সরগরম  

মতিউর মুন্না//স্টাফ রিপোর্টার, সময়নিউজবিডি
আগামী ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার ১০ ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থীদের কারনে জমে উঠেছে নির্বাচনী আমেজ। পুরো উপজেলা জুড়ে সর্বত্রই চলছে প্রার্থীদের জমজমাট প্রচারণা। প্রতিটি ইউনিয়নের রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, দোকানপাটে চলছে নির্বাচনী আলোচনা। বিশেষ করে চা দোকানগুলোতে চায়ের চুমুকে চুমুকে চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীদের ঘিরেই চলছে আলোচনা। ভোটের মাঠে কে এগিয়ে, কে পিছিয়ে ও কে বিজয়ী হবে এ নিয়ে চলছে চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ। পাশাপাশি প্রত্যেক প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চেয়ে চলছে পুরোদমে মাইকিং। বিভিন্ন গানের সাথে চন্দ মিলিয়ে ভোটারদের ভোট প্রার্থনায় সকাল থেকে সন্ধায় মাইকিং করা হচ্ছে।
এদিকে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরজমিন ঘুরে জানা গেছে, উপজেলায় ১০ টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগে মনোনয়ন প্রত্যাশী অনেক প্রভাবশালী ও জনপ্রিয় প্রার্থী ও একাধিক সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যান দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে নিজ এলাকার জনগনের চাপে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে মাঠে নিজেদের শক্ত অবস্থান তৈরী করে রেখেছেন।
আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ভোটের মাঠে শক্ত অবস্থানে রয়েছে বুধন্তি ইউনিয়নে  মোঃ দেলোয়ার হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদ্য সাবেক শিল্প ও শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মোঃ মোবারক হোসেন, ইছাপুরা ইউনিয়নে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সদ্য সাবেক আহবায়ক বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ জিয়াউল হক বকুল, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদ্য সাবেক সদস্য সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আকতার হোসেন, পত্তন ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামীলীগের সদ্য বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ তাজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত সদস্য সামসুল আলম মেম্বার, চর ইসলামপুর ইউনিয়নে উপজেলা যুবলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ছানাউল্লাহ;  বিষ্ণপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ জামাল উদ্দিন ভূইয়া, হরষপুর ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত কোষাধ্যক্ষ রাজিব চন্দ্র বনিক, বহিষ্কৃত আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ শাহজাহান, পাহাড়পুর ইউনিয়নে পাহাড়পুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক এম অলি আহমেদ, বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন মলাই এবং সিঙ্গারবিল ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত উপ-দপ্তর সম্পাদক আল-আমিন ভূইয়া।
চান্দুরা ইউনিয়নে ইউপি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী ফায়েজ, বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ জসিম উদ্দিন চৌধুরী, চম্পকনগর ইউনিয়নে ইউপি আওয়ামীলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইউসুফ আলী ভূইয়া নুরধন, বিএনপির নেতা মোঃ সিরাজুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আক্তার হোসেন, বুধন্তী ইউনিয়নে কাজী সাইদুল হক, বিএনপি নেতা মোঃ মাহবুবুল আলাম, চান্দুরা ইউনিয়নে জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নুরুল হক নিয়াজ, সাবেক ৭ বারের মেম্বার মোঃ মারফত আলী, প্রবাস ফেরত বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ বাবুল মিয়া, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টির মনোনীত সঞ্জয় রায় পোদ্দার, সিংগারবিলের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ ফজলুল হক নির্বাচনের মাঠে ফলাফল রদবদলে প্রভাব ফেলতে পারে বলেও আলোচনা চলছে উপজেলার সর্বত্র।
গতকাল রবিবার উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের নোয়াগাঁও মোড়ে কথা হয় অটোরিকশা চালক রমজানের সাথে। তিনি জানান, ন্যায় বিচারক হিসেবে এবার বিদ্রোহী প্রার্থী তাজুল ইসলামের ঘোড়া মার্কায় ভোট দেবেন। আপনি নিজের এলাকার আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী কামরুজ্জামান রতনকে ভোট না দিয়ে ভাটির প্রার্থীকে (তাজুল ইসলামকে) ভোট দেবেন কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রমজান মিয়া জানান, রতন চেয়ারম্যানের অনেক দোষ আছে, উনি উজানের প্রত্যেকটা গোষ্ঠীর মানুষকে একে অপরের মাঝে ঝগড়া বিবাদ লাগিয়ে রেখেছে, এমনকি আমার এক আত্নীয়ের কাছ থেকে ঘর দেওয়ার কথা বলে ঘর দেয়নি। আমরা গরিবকে কোনদিন জিজ্ঞেসও করেননি।
আদমপুর গ্রামের অপর এক বাসিন্দা জাকির হোসেন জানান, ভাটিতে একজন প্রার্থী আর উজানে তিনজন প্রার্থী। সেই হিসেবে ভাটির প্রার্থী তাজুল ইসলামেরই জিতার সম্ভাবনা অনেক বেশি। সুতরাং ভোট নষ্ট না কইরা এবার তাজুরেই ভোট দিমু।
অপরদিকে, সোমবার সকালে ইছাপুরা ইউনিয়নের আড়িয়ল গ্রামের বয়োবৃদ্ধ জামসেদ আলীর সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তিনি জানান, বকুল অনেক ভালো মানুষ। ছেলেডারে দেখছি মানুষের সুখে-দুঃখেসবসময় পাশে থাকে। কিন্তু হুনছি দল থেকে তাকে এবার দিছে না। সে নাকি প্রার্থী হইছে। যদি ভোটের দিনকেন্দ্রে যাইতে পারি তাইলে বকুলরেই ভোটটা দিমু।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে সাধারণ ভোটারের সাথে আলোচনা করে জানা যায়, ভোটাররা এবার প্রতিক দেখে নয় প্রার্থীদের চারিত্রিক ও ইউনিয়নকে ন্যায় বিচারের মাধ্যমে শান্তিশৃঙ্খলা সাথে স্থানীয় পর্যায়ে উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবে এমন প্রার্থীকেই বিজয়ী করবে।
ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com