সংবাদ শিরোনাম
জননেত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে সকল ধর্মের মানুষ নিরাপদ; পৌর মেয়র নায়ার কবির মহামারি পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজার সব কার্যক্রম পরিচালনার আহবান জানিয়েছেন পৌর মেয়র নায়ার কবির চম্পকনগরে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে মোকতাদির চৌধুরী এমপির পক্ষ থেকে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান সুনামগঞ্জের চাঞ্চল্যকর হানিফ হত্যা মামলার প্রধান আসামী হাবিবুর রহমানকে ভৈরবে গ্রেপ্তার নবীনগরে যুবদলের কর্মী সভায় পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা ফ্রান্সে বিশ্বনবী মোহাম্মদ (সাঃ) এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে; আবুল হাসানাত আমিনী বিজয়নগরে বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করলেন নাছিমা মুকাই আলী র‍্যাবের অভিযানে আশুগঞ্জে দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ভৈরবে র‍্যাবের অভিযানে অবৈধভাবে বাংলাদেশে বসবাসের অপরাধে দুই বিদেশী নাগরিক আটক মিজানুর রহমান মিজ্জু’র মৃত্যুতে পৌর মেয়র নায়ার কবিরের শোক
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গৃহবধূর লাশ হাসপাতালে রেখে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের পলায়ন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গৃহবধূর লাশ হাসপাতালে রেখে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের পলায়ন

স্টাফ রিপোর্টার//সময়নিউজবিডি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাথী আক্তার-(২৮) নামে এক গৃহবধূর লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে গেছে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে এসে সাথীর লাশ দেখতে পায় তার বাবার লোকজন।
দুই সন্তানের জননী সাথী আক্তার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের খেওয়াই গ্রামের প্রবাসী শাহীন মিয়ার স্ত্রী ও কসবা  পৌর এলাকার আড়াইবাড়ি গ্রামের আবুল খায়েরের মেয়ে।
সাথী আক্তারের ভগ্নিপতি মোহাম্মদ লিটন মিয়া অভিযোগ করে বলেন, প্রায় ১৩ বছর আগে সদর উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের খেওয়াই গ্রামের রমজান মিয়ার ছেলে শাহীন মিয়ার সাথে সাথী আক্তারের বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনে ইসমাইল মিয়া-(৬) ও ইসরাত আক্তার-(৩) নামে তাদের দুই সন্তান রয়েছে।
সাথী আক্তারের ভগ্নিপতি মোহাম্মদ লিটন মিয়া আরো বলেন, বিয়ের পর থেকেই যৌতুক দাবি করে সাথীকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করতো 
শাহীন ও তার পরিবারের লোকজন। ২০১৭ সালে শাহীন মিয়া বিদেশে চলে যায়। শাহীন বিদেশে চলে যাওয়ার পর সাথীর উপর অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যায়। দেবর সাহেদ-(২৮) কে বিদেশে পাঠাতে বাবার বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে সাথীকে চাপ দিত তার শ্বশুর রমজান মিয়া ও শ্বাশুড়ি। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সন্ধ্যায় সাথীকে বেদম মারধোর করা হয়।রাত ১১টায় আমাদেরকে খবর দেয়া হয় সাথী অসুস্থ্য তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় আমাদেরকে জানানো হয় সাথী মারা গেছে। পরে হাসপাতালে এসে দেখি সাথীর লাশ হাসপাতালে রেখে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছে।  তিনি বলেন, সাথীর হাতে ও মাথায় জখমের চিহ্ন রয়েছে।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহিম বলেন, আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে  প্রেরণ করেছি। সাথীর স্বামীর বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত স্বাপেক্ষে এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com