সংবাদ শিরোনাম
রক্তের গ্রুপিং ও মাস্ক বিতরণের মধ্য দিয়ে মোকতাদির চৌধুরী এমপির জন্মদিন পালিত বিজয়নগরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে এক ইটভাটাকে দুই লাখ টাকা জরিমানা আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা সহ ৩১ পৌরসভার নির্বাচন।। ইভিএম এ ভোট গ্রহণ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে এশিয়ান টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত নাসিরনগরে শীর্তাতদের মাঝে ইসলামী ঐক্যজোটের কম্বল বিতরণ বর্ণাঢ্য আয়োজনে নাসিরনগরে এশিয়ান টিভির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন ও অফিস উদ্বোধন সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া উপজেলা পরিষদ এসোসিয়েশন বিজয়নগরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে এক ইটভাটাকে চার লাখ টাকা জরিমানা নবীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি’র সাবির বিজয়ী নাসিরনগর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে চিহ্নিত ডাকাত ও চোরসহ গ্রেপ্তার- ২০
ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অবৈধ ওষুধ কোম্পানী সিলগালা।। দুই লাখ টাকা জরিমানা

ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অবৈধ ওষুধ কোম্পানী সিলগালা।। দুই লাখ টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার//সময়নিউজবিডি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় “লরেল ভিস্তা” নামে একটি অনুমোদনহীন ওষুধ কোম্পানীকে সিলগালা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল বুধবার বিকেলে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পঙ্কজ বড়ুয়া উপজেলার নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নের কালিসীমা গ্রামের ওই কোম্পানীতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন।পরে ভ্রাম্যমান আদালত ওই কোম্পানীর মালিক কামরুল হাসান চকদারকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেন এবং ওষুধ বানানোর বেশ কিছু সরঞ্জামাদি জব্দ করেন। 
ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, জেলার নাসিরনগর উপজেলার কামরুল হাসান চকদার নামে এক ব্যক্তি কালিসীমা গ্রামের একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে “লরেল ভিস্তা” নামে গবাদী পশুর একটি ওষুধ কোম্পানী গড়ে তুলেন। সেখানে তৈরি হতো অনুমোদনহীন ৪৯ ধরণের ওষুধ। ওই ওষুধ কোম্পানীতে নেই কোন কেমিস্ট। ওষুধ কোম্পানির একসময়কার বিক্রয় প্রতিনিধিই বানাতেন এসব ওষুধ। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পঙ্কজ বড়ুয়া জানান, লোক চক্ষুর আড়ালে ওই বাড়িতে গবাদি পশুর ওষুধ বানাতেন কামরুল হাসান চকদার। এতে বাজার থেকে পাওয়া চাহিদা অনুযায়ি ৪৯ ধরণের ওষুধ বানানো হতো। ‘লরেল ভিস্তা’ নামে কোম্পানির নাম দিয়ে ওষুধ বাজারজাত করা হতো। অথচ এর কোনো অনুমোদন নেই। তিনি আরো জানান, অভিযানের সময় ওই কোম্পানিতে কোনো কেমিস্ট পাওয়া যায়নি, মান নিয়ন্ত্রণের কোনো ব্যবস্থা নেই, ওষুধের মোড়কের গায়ে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়েছে, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের প্যাকেট পরিবর্তন করে নতুন প্যাকেটে ওষুধ ভর্তি করে বিক্রি করা হতো। কামরুল হাসান চকদার আগে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন।

ইনাম/সময়নিউজবিডি টুয়েন্টিফোর।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Somoynewsbd24.Com